সাতক্ষীরায় এবার ৫৮১টি মন্ডপে দূর্গাপূজার প্রস্তুতি

প্রকাশিত: ৭:১৭ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৮, ২০২১ | আপডেট: ৭:১৯:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৮, ২০২১

বাঙ্গালী সাংস্কৃতিতে দুর্গা পূজা হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব। আর এই দুর্গোৎসবের প্রধান অনুষঙ্গ দেবী দুর্গার প্রতিমা। তাই এই প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন সাতক্ষীরার মৃৎশিল্পীরা। দিনরাত পরিশ্রম করে রং তুলি আর হাতের নিপুন ছোঁয়ায় তৈরি করছে প্রতিমা।

তবে গত বছর মহামারি করোনা ও লকডাউনের কারনে জরেসরে মা দেবী দূর্গার ভক্তরা উৎসব পালন করতে না পারলেও এবারের উৎসবের প্রস্তুতি একটু বেশ বড়। তাইতো গত বারের চেয়ে বেশি, সাতক্ষীরায় এবার ৫৮১টি মন্ডপে দূর্গাপূজার প্রস্তুতি নিয়েছেন আয়োজকরা। আর উৎসবকে নির্বিঘ্ন করতে পুশিল প্রশাসনের পক্ষ থেকেও নেওয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা।
বাতাসের দোলায় শরতের কাশফুল জানান দিচ্ছে যে, চলে আসছে শারদীয় উৎসব। আর তাই শারদীয় দুর্গোৎসব কে সামনে রেখে সাতক্ষীরার ৫৮১টি মন্ডপে চলছে দেবীদূর্গার প্রতিমা রং তুলির কাজ।

গত ০৬ অক্টোবর শুভ মহালয়ার মাধ্যমে দূর্গাপূজার ডামাডোল বাঁজলেও এবছর ১১ই অক্টোবর মহা ষষ্ঠী’র মধ্যে দিয়ে শুরু হবে এই শারদীয় দূর্গোৎসব। দুষ্টের দমন আর শিষ্টের পালনের জন্যই দেবী দুর্গার স্বর্গ থেকে আগমন ঘটেছিল মর্ত্যলোকে। মানব জাতিকে সকল বিপদ থেকে মুক্ত করে শান্তি প্রতিষ্ঠা করবে এমনটি চাওয়া দেবী ভক্তদের।
দেবী দূর্গা আসছেন, তাই চলছে শেষ সময়ের প্রস্তুতি। করোনা সংক্রমন কম থাকায় এবছর কাজের চাপও বেশি।

তাই দিন-রাত পরিশ্রম করতে হচ্ছে তাদের। তবে এবছর রং সহ জিনিস পত্রের দাম বেশি হলেও মজুরি ভাল পাওয়ায় আন্দদের সাথে কাজ করছে প্রতিমা শিল্পীরা। এদিকে করোনার কারনে দীর্ঘ দুই বছর পরে উৎসব মুখর পরিবেশে দূর্গোৎসব পালনের প্রত্যয় আগত দর্শনার্থীদের।

সংকর রায়, প্রদীপ দাশসহ কয়েকজন প্রতিমা শিল্পীরা জানান, শেষ সময়ে প্রতিমা শিল্পীদের নিপুন হাতের ছোঁয়ায় একে একে তৈরি হচ্ছে অসুরসহ বিভিন্ন দেব-দেবীর মূর্তি আর তাদের বাহন পেঁচা, হাঁস, ইঁদুর আর ময়ূর। এখন চলছে রঙ রং তুলির কাজ। তারা আরও জানান, করোনায় গত বছরে ভালো মজুরি পায়নি। তবে এবছর খুব ভাল মজুরিতে ৫ টি কাজ পেয়েছি।

সাতক্ষীরা জেলা মন্দির সমিতির সভাপতি ও বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক বিশ্বনাথ ঘোষ জানান, সাতক্ষীরায় এবছর ৫৮১টি পূজা মন্ডপে স্বাস্থ্য বিধি মেনে দূর্গা পুজা অনুষ্ঠিত হবে। ইতি মধ্যে প্রতিটি মন্ডপের সাজসজ্জার কাজ প্রায় শেষের দিকে।

সাতক্ষীরার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান জানান, সাতক্ষীরার সাত উপজেলার ওয়ার্ড পর্যায়ে সুষ্ঠ ও সুন্দরভাবে নির্বিঘ্ন পূজা সম্পন্ন করতে র‌্যাব ও পুলিশের পাশাপাশি কয়েক স্তরে সাদা পোশাকে মাঠে থাকবে আইনশৃংখলা বাহিনী।

এদিকে, দীর্ঘ দুই বছর পর সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টা ও সহযোগিতায় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রেখে সাতক্ষীরায় দুর্গাপূজা উদযাপনে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন সংশ্লিষ্টরা।
তবে এবছর মহাষষ্ঠীতে ঘোটকে চড়ে পৃথিবীতে আসবেন আর পূঁজার সকল আনুষ্ঠিকতা শেষে দোলায় চড়ে কৈলাশে ফিরবেন দেবী দূর্গা।

 

 

এস/জি


আপনার মতামত লিখুন :

নিজস্ব প্রতিবেদক। ডেক্স