খোলপেটুয়া নদীর বেড়িবাঁধটি অবশেষে স্বেচ্ছাশ্রমে সংস্কার করা হয়েছে

প্রকাশিত: ৫:২৮ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৩, ২০২১ | আপডেট: ৫:২৮:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৩, ২০২১
খোলপেটুয়া নদীর বেড়িবাঁধটি অবশেষে স্বেচ্ছাশ্রমে সংস্কার করা হয়েছে

সাতক্ষীরা শ্যামনগরের খোলপেটুয়া নদীর ভেঙে যাওয়া বেড়িবাঁধটি অবশেষে স্থানীয় হাজার হাজার মানুষ স্বেচ্ছাশ্রমে রিংবাধ দিয়ে পানি বন্ধ করতে সক্ষম হয়েছে। শনিবার দুপুরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ভবতোষ মন্ডলের নেতৃত্বে শনিবার সকাল থেকে হাজার হাজার এলাকাবাসী সেখানে বাধ মেরামতের কাজ শুরু হরেন। এর আগে গত বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রবল জোয়ারের তোড়ে উপজেলার বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়নের পশ্চিম দুর্গাবাটিতে খোলপেটুয়া নদীর বেঁড়ি বাধ ভেঙে ৫ টি গ্রামের প্রায় ১০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়ে। এতে পানিতে প্লাবিত হয় প্রায় ৫ হাজার বিঘা মৎস্য ঘের ও ফসলি জমি।

বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ভবতোষ মন্ডল জানান, নদীর পানি বৃদ্ধির ফলে প্রতিবছর এই ভাঙ্গন দেখা যায়। প্রায় ৫০ বছর ধরে এই বেঁড়িবাধ ভাঙছে। আর এই বেড়িবাধ ভাঙার জন্য তিনি পানি উন্নয়ন বোর্ডের গাফিলতিকে দায়ী কারনে। তিনি আরো জানান, স্থানীয় হাজার হাজার এলাকাবাসীকে নিয়ে গত দুই দিন ধরে সেখানে রিংবাধ দিয়ে কোন রকমে বাধটি মেরামত করা হয়েছে।

 

শ্যামনগর উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউল হক দোলন বলেন, নদীতে অস্বাভাবিক জোয়ারে বৃদ্ধি পাওয়ায় উচ্চ জোয়ারের চাপে বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়নের পশ্চিম দূর্গাবাটি পয়েন্টের ভেরিবাঁধ ভেঙে যায়। এছাড়াও পদ্মপুকুর ইউনিয়নের খুটিকাটা, পদ্মপুকুর, চন্ডিপুর ও চাউলখোলা পয়েন্টের বেড়িবাঁধ গুলো খুবই ঝুঁকির মধ্যে। যেকোনো মুহূর্তে এই বেড়িবাঁধগুলো ভেঙে যেতে পারে। তিনি এসময় টেকসই বেঁড়িবাধ নির্মানের জন্য সরকারের দৃষ্টি আকর্ষন করেন।

 

এসজি/ডেক্স


আপনার মতামত লিখুন :

নিজস্ব প্রতিবেদক। ডেক্স