কেশবপুরে পিতার সম্পত্তি চাওয়ায় ভায়ের হাতে বোন জখম

প্রকাশিত: ৫:৪৮ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৭, ২০২১ | আপডেট: ৫:৪৮:অপরাহ্ণ, মার্চ ১৭, ২০২১

যশোরের  কেশবপুরে পিতার সম্পত্তি ফেরত চাওয়ায় ভাইয়ের হাতে বোন রহিমা খাতুন মারাত্মক ভাবে আহত হন। বর্তমানে তিনি খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এ ঘটনায় ইব্রাহিম হোসেন বিশ্বাস বাদি হয়ে  উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

 

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, কেশবপুর পৌর শহরের আলতাপোল এলাকার ইয়াসিন আলী বিশ্বাস কয়েক বছর আগে মৃত্যুবরণ করেন । মৃত্যুকালে তিনি সাড়ে ৭ বিঘা জমি, স্ত্রী, ৪ ছেলে ও ৪ মেয়ে রেখে যান। তার মৃত্যুর পর ওই জমি স্ত্রীসহ সন্তানদের মধ্যে ভাগ করে দেওয়া হয়। বিয়ের পর স্বামীর বাড়িতে থাকায় তার মেয়ে রহিমা খাতুন ভাগের অংশের জমি বড় ভাই মহিদুল বিশ্বাসকে দেখভালের দায়িত্ব দেন। ওই জমিতে ধান ও অন্যান্য ফসল উৎপাদন করে নিজেই ভোগদখল করে আসছে। সম্প্রতি রহিমা খাতুন তার অপর ভাই সাবদিয়া এলাকায় বসবাসকারী ইব্রাহিম হোসেন বিশ্বাসের বাড়িতে বসবাস শুরু করলে তার অংশের সম্পত্তি মহিদুল বিশ্বাসকে বুঝিয়ে দিতে বলেন। জমি আত্মসাৎ করার লক্ষে বুঝে না দিয়ে বিভিন্নভাবে তালবাহানা করতে থাকে। জমি ফেরৎ চাওয়ায় একপর্যায়ে ক্ষিপ্ত হয়ে মহিদুল লোকজন নিয়ে তার বোন রহিমা খতুনকে হত্যার উদ্দেশ্যে তার উপর হামলা চালিয়ে কুপিয়ে জখম করে। আহতঅবস্থায় তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তার মেরুদন্ডের উপর ১৪ টি, কানের উপর ৪ টি ও কপালে ৫ টি সেলাই দিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন। এ ঘটনায় ইব্রাহিম হোসেন বিশ্বাস বাদি হয়ে মঙ্গলবার উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। 

উপজেলা নির্বাহী অফিসার এম এম আরাফাত হোসেন বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত পূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

মশিয়ার রহমান। নিজস্ব প্রতিবেদক। কেশবপুর, যশোর