পদ্মা সেতু বাস্তবায়নে দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের চোখে যেন “আনন্দ অশ্রু, খুশির বান”

প্রকাশিত: ৮:০১ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১০, ২০২০ | আপডেট: ৮:০১:অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১০, ২০২০

খুলে গেল দক্ষিণদ্বার, স্বপ্ন পুরনে বাকী নেই আর, বিজয়ের মাসেই স্বাধীন হলো দক্ষিণাঞ্চলবাসী। দুরত্বহীন দুই পাড়ের সেতু বন্ধনে ধন্য শিক্ত হলো বঙ্গবন্ধু কন্যার উন্নয়নে। অকল্পনিয় সপ্ন পুরনে দক্ষিণাঞ্চলাবসীর চোখে যেন আনন্দ অশ্রু, খুশির বান।

 

পদ্মা সেতু নির্মাণের সাথে সাথে মোংলা বন্দরের সক্ষমতা বৃদ্ধিতে এগিয়ে চলছে নানামুখী পদক্ষেপ ও উন্নয়ন কর্মকান্ড। করোনাকালীনও উদ্যাম গতিতে চলছে এসব প্রকল্পের কর্মযজ্ঞ। ইতিমধ্যে উল্লেখযোগ্য কয়েকটি প্রকল্পের কাজ দৃশ্যমান হয়েছে। বন্দর ব্যবহারকারীরা বলছেন, পদ্মা সেতু চালু হলে রাজধানীর সাথে মোংলা বন্দরের যোগাযোগ ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তন ও সহজ লভ্যতা আসবে। বন্দর কর্তৃপক্ষ বলছেন, পদ্মা সেতু নির্মাণের সাথে সাথে মোংলা বন্দরের এসব প্রকল্পের কাজ শেষ হলে, চট্টগ্রাম বন্দরের চেয়ে মোংলা বন্দরও ব্যবসায়ীদের কাছে আগ্রহের প্রধান কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হবে।কারন ঢাকা থেকে মোংলা দুরত্ব অনেক কম যা চট্রগ্রামে অধিক।

 

বন্দর সূত্রের বরাত দিয়ে  জানায়, পৃথিবীর প্রায় সব প্রধান বন্দরের সঙ্গেই মোংলা বন্দরের বাণিজ্য সম্পর্ক রয়েছে। প্রধানত এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য, অস্ট্রেলিয়া, ইউরোপ এবং উত্তর আমেরিকার জাহাজগুলো এই বন্দরে নোঙর করে থাকে। এ বন্দরটি দেশের আমদানি-রপ্তানির প্রসারে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখে আসছে। পদ্মা সেতু নির্মাণের ফলে সম্প্রতি মোংলা বন্দরকে ঘিরে নতুন সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচিত হয়েছে। এছাড়া ভারত, ভুটান ও নেপালের সাথে সরকারের চুক্তির ফলে এ সম্ভাবনা আরো বৃদ্ধি পেয়েছে। ভারত, নেপাল, ভূটানকে মোংলা বন্দর ব্যবহারের সুযোগ দেওয়ার ফলে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার এটি একটি বৃহৎ বাণিজ্যিক কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে। পদ্মা সেতু চালু হলে ব্যবসায়ীরা মোংলা বন্দর ব্যবহারে উৎসাহি হবেন। এ বিষয়কে সামনে রেখে বন্দরের আধুনিকায়নের জন্য উন্নয়নের সকল কার্যক্রম ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে। পদ্মাসেতুর কাজ শেষ হলে রাজধানী ঢাকার সাথে যোগাযোগ সহজ হবে এবং এ বন্দরের কার্যক্রম আরো বেড়ে যাবে বলে মনে করছেন বন্দর কতৃপক্ষ।

 

মোংলা বন্দর কতৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল এম শাহজাহান বলেন, বাংলাদেশের দ্বিতীয় সমুদ্র বন্দর হলেও কখনও কখনও এখানে ৫০/৬০টি জাহাজ নোঙর করতে দেখা যায়। সমুদ্রগামী জাহাজ চলাচল উপযোগী এ বন্দরের প্রবেশ মুখ ও পশুর নদীর গভীরতা হারিয়ে ফেলায় পরবর্তী সময়ে, বিশেষ করে ১৯৮০ সাল থেকে বন্দরটি প্রায়ই বন্ধ হয়ে যাওয়ার পথে ছিল। বর্তমান সরকারের আমলে নানা দিক দিয়েই বন্দরের ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হয়েছে এবং বন্দর পুনরায় সচল হয়েছে। সম্প্রতি পদ্মা সেতু নির্মাণের সাথে এ বন্দরে বেশ কিছু উন্নয়ন প্রকল্প চলমান রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে কন্টেইনার ইয়ার্ড, সারফেস ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্ট, বন্দর ব্যবহারকারীদের জরুরী বার্তা সেবা (ভ্যাসেল ট্রাফিক মেনেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেম), অত্যাধুনিক উদ্ধারকারী জাহাজ, ড্রেজিং ব্যবস্থাসহ বিভিন্ন প্রকল্প। এছাড়া এ বন্দরে রয়েছে ১১টি জেটি, পণ্য বোঝাই ও খালাসের জন্য ৭টি শেড এবং ৮টি ওয়্যারহাউজ। নদীর গভীরে রয়েছে অসংখ্য ভাসমান নোঙর। সাগর থেকে বন্দরে প্রবেশমুখ হিরণ পয়েন্ট নামক স্থানে রয়েছে বিদেশী নাবিকদের জন্য একটি রেস্ট হাউজ । ইতিমধ্যে বেসরকারী কিছু প্রতিষ্ঠানও মোংলা বন্দর কেন্দ্রিক নানা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন। মোংলা বন্দর এখন লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। আমরা আশা করি পদ্মা সেতু চালু হলে মোংলা বন্দর বিপুল পরিমাণ রাজস্ব আয় করতে সক্ষম হবে।

 

অর্থনীতিবিদ ও পরিবহণ সংশ্লিষ্টরা জানান, পদ্মা সেতু চালু হলে দেশের সড়ক যোগাযোগ খাতে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসবে। খুলনা ও বরিশাল বিভাগসহ দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার সঙ্গে রাজধানীর সরাসরি সড়ক যোগাযোগ স্থাপন হবে। বিশেষ করে মোংলা বন্দর ব্যবহার বাড়বে। এতে চট্টগ্রাম বন্দরের ওপর চাপ কমে আসবে।

 

পদ্মা সেতু কাজ পুরোপুরি শেষ হলে মোংলা বন্দর হবে দেশের ব্যবসায়িক রাজধানী।স্বাধীনতার ইতিহাসে এই প্রথম মোংলার মোংলায় রেললাই স্থাপন দ্রুত এগিয়ে চলছে। মোংলার অদূরে বাগেরহাটের ফয়লায় দক্ষিণাঞ্চলের অন্যতম খানজাহান আলী বিমান বন্দর মোংলা ইপিজেড এ বিদেশী পন্যে বহী কার্গো বিমান ও বায়ারদের চলাচল আরো সুগম করবে।স্থানীয় অভিযাত ও শীর্ষস্থানীয় বেক্তিদের বেক্তিত্বের প্রতীক হয়ে দাড়াবে। সারা দেশের ব্যবসায়ীরা মোংলামুখী হতে শুরু করবে।


আপনার মতামত লিখুন :

ম.ম. রবি ডাকুয়া। প্রতিবেদক। বাগেরহাট, খুলনা