সাতক্ষীরার মানুষ শাহেদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি চায়

প্রকাশিত: ২:৪৩ অপরাহ্ণ, জুলাই ১০, ২০২০ | আপডেট: ২:৫০:অপরাহ্ণ, জুলাই ১০, ২০২০

সাতক্ষীরার ছেলে শাহেদ করিম, ঢাকায় গিয়ে হয়েছেন মো. শাহেদ। শাহেদের গ্রামের বাড়ি সাতক্ষীরা শহরের কামালনগরে। এখানে বর্তমানে তার আর কিছুই নেই। সব বিক্রি করে অনেক আগেই তারা পাড়ি জমিয়েছেন, থাকেন ঢাকাতে। তার বাবার নাম সিরাজুল করিম ও মায়ের নাম মিসেস সাফিয়া করিম। এক সময় তার মা সাতক্ষীরা জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সাধারন-সম্পাদিকা ছিলেন।

 

তবে,  সাতক্ষীরার আপামর মানুষ আলোচিত এই মো: শাহেদ’র ঘৃণীত অপরাধের দায়িত্ব নিতে রাজি নয়। তাকে বেশীরভাগ মানুষ না চিনলেও সবাই এক বাক্যে তার দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবি করেছেন। এদিকে পুলিশসহ সরকারের বিভিন্ন বিভাগ শাহেদের ব্যাপারে অধিকতর তদন্তে নেমেছেন। সাতক্ষীরার দলীয় নেতাকর্মীসহ প্রত্যেকেই তার অপকর্মের শাস্তি দাবি করেছেন।

এদিকে পুলিশ তার ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহে এবং তার অপরাধ কর্মকান্ডের ব্যাপারে খোঁজখবর নিতে মাঠে নেমেছেন। 

 

খোঁজ খবর নিয়ে জানা যায়, শাহেদের বাবা সিরাজুল করিম ও মা মিসেস সাফিয়া করিম শাহেদের অনৈতিক কর্মকান্ড ও তার বিরুদ্ধে মামলার পাহাড় নিয়ে চিন্তিত ছিলেন। শাহেদ বরাবরই ঢাকাতে থাকতো সাতক্ষীরায় আসতো কম। সাতক্ষীরার মানুষ তার বিরুদ্ধে তেমন কিছুই জানতো না। তার ভিন্নধর্মি শারিরীক অবয়ব ও টেলিভিশন টকশো’তে তাকে দেখে চিনতো, কিন্তু শাহেদ করিম যে সাতক্ষীরার সেটা বেশীরভাগ মানুষ জানতো না। তার মা মারা যাওয়ার পর তার বাবা অনেক আগেই তাদের নামে শহরের প্রাণকেন্দ্রে কামালনগরে যে করিম সুপার মার্কেট ও তাদের বসতভিটা ছিল তা বিক্রি করে স্থায়ীভাবে সাতক্ষীরা ছেড়ে ঢাকায় চলে যান।

 

সাতক্ষীরা নাগরিক আন্দোলন মঞ্চের সাধারন সম্পাদক হাফিজুর রহমান মাসুম ও পৌর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক শাহাদাৎ হোসেন জানান, শাহেদকে সাতক্ষীরাবাসী সবাই প্রতারক হিসেবে চেনেন। তারা এই প্রতারকের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবী জানান।

 

সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আলহাজ্জ নজরুল ইসলাম জানান, স্বাস্থ্য সেবার নামে শাহেদ যেভাবে মানুষকে প্রতারনা করেছে এটি নিঃসন্দেহে লজ্জাজনক ও দুঃখ জনক। আইনের সর্বোচ্চ প্রযোগের মাধ্যমে এ ধরনের প্রতারকের শাস্তি হওয়া উচিত বলে তিনি মন্তব্য করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

নিজস্ব প্রতিবেদক। ডেক্স