বাংলাদেশে বিনিয়োগে শীর্ষে যুক্তরাষ্ট্র: শিল্পমন্ত্রী

প্রকাশিত: ৮:৫৬ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২০ | আপডেট: ৮:৫৬:অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২০

বাংলাদেশে বিনিয়োগে শীর্ষে যুক্তরাষ্ট্র: শিল্পমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা:
বাংলাদেশে বিনিয়োগকারী দেশগুলোর মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র শীর্ষস্থানে রয়েছে বলে জানিয়েছেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন। তিনি বলেন, দেশে বৈদেশিক বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে বাণিজ্য ব্যবস্থা উদার করা হয়েছে এবং শুল্কবিহীন বিধিনিষেধ উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস করা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে আমেরিকান চেম্বার অব কমার্স (অ্যামচেম) এবং বাংলাদেশে মার্কিন দূতাবাসের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত হয় ২৭তম ইউএস ট্রেড শো। অনুষ্ঠানের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এ কথা বলেন।
অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন যুক্তরাষ্ট্রের চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স জোয়েন ওয়েগার, অ্যামচেমের সভাপতি সৈয়দ এরশাদ আহমেদ , বিডা’র নির্বাহী পরিচালক মো. সিরাজুল ইসলামসহ অন্যান্যরা।
শিল্পমন্ত্রী বলেন, শিল্পনীতি ২০১৬-এ দেশের সর্বত্র বিশেষত রফতানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চলসমূহে বৈদেশিক বিনিয়োগ আকর্ষণের জন্য বিশেষ ইনসেন্টিভ ও সুবিধা নিশ্চিত করা হয়েছে। জ্বালানি, অবকাঠামো, যোগাযোগ, কৃষি-ব্যবসা, আইসিটি, শিক্ষা, পর্যটন, রিয়েল এস্টেটসহ অন্যান্য ক্ষেত্রে প্রচুর সুযোগ নিশ্চিত করা হয়েছে।
নূরুল মজিদ আরও বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্রের ৫২তম বৃহৎ বাণিজ্যিক অংশীদার। ২০১৯ সালে মোট বাণিজ্যের পরিমাণ ৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বেশি ছিল। যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশের দ্বি-পাক্ষিক বাণিজ্যের পরিমাণ ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং বাণিজ্য ঘাটতি ধীরে ধীরে কমে আসছে।
শিল্পমন্ত্রী বলেন, বৈচিত্র্যময় শিল্পখাতে বিদ্যমান বিশাল সম্ভাবনা সন্ধানের জন্য সরকার ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের কাজ চলমান রেখেছে। সেইসঙ্গে রাসায়নিক, প্লাস্টিক, চামড়া, সিরামিক, অটোমোবাইল, খাদ্য এবং অন্যান্য অনেক শিল্প স্থাপনের কাজ চলমান রয়েছে। শিল্পমন্ত্রী দ্বি-পাক্ষিক বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বাড়াতে দু’দেশের ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের মধ্য পারস্পরিক যোগাযোগ আরও বৃদ্ধি করার আহ্বান জানান।
ইউএস ট্রেড শো দুই দেশের অর্থনৈতিক সম্ভাবনা এবং সুযোগগুলোকে কাজে লাগিয়ে বিদ্যমান বাণিজ্যিক সম্পর্ক সম্প্রসারণে ভূমিকা রাখবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

পুঁজিবাজারে ওয়ালটনের প্রান্তসীমা মূল্য নির্ধারণের নিলাম শুরু ২ মার্চ

পুঁজিবাজারে আসছে ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড। প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে পুঁজিবাজার থেকে মূলধন সংগ্রহ করবে তারা। এ লক্ষ্যে দেশের শীর্ষ ইলেকট্রিক, ইলেকট্রনিক্স এবং হোম অ্যাপ্লায়েন্স কোম্পানি ওয়ালটনের আইপিও শেয়ারের প্রান্তসীমা মূল্য বা কাট অফ প্রাইস নির্ধারণ শুরু হচ্ছে আগামি ২ মার্চ বিকাল ৫টা থেকে। চলবে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টা পর্যন্ত।
এদিকে, যোগ্য বিনিয়োগকারীদের (এলিজিবল ইনভেস্টর) অংশগ্রহণের মাধ্যমে বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে শেয়ারের কাট অফ প্রাইস নির্ধারণের জন্য ইলেক্ট্রনিক সাবস্ক্রিপশন সিস্টেম ব্যবহারের উদ্দেশ্যে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এবং চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই)-এর সঙ্গে চুক্তি করেছে ওয়ালটন।
গত মঙ্গলবার (২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০) ডিএসই-এর নিকুঞ্জ অফিসে ওই চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের পক্ষে চুক্তিতে সই করেন ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর নজরুল ইসলাম সরকার। ডিএসই-এর পক্ষে স্বাক্ষর করেন প্রতিষ্ঠানটির এসিস্টান্ট জেনারেল ম্যানেজার মো. আব্দুল লতিফ। আর সিএসই-এর জেনারেল ম্যানেজার (হেড অব বিজনেস ডেভেলপমেন্ট) মো. গোলাম ফারুক নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে চুক্তিতে সই করেন।
এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ডিএসই-এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর কাজী সানাউল হক, চিফ অপারেটিং অফিসার এম সাইফুর রহমান মজুমদার, চিফ ফিনান্সিয়াল অফিসার আবদুল মতিন পাটোয়ারি, ওয়ালটনের সিনিয়র অপারেটিভ ডিরেক্টর মো. ইয়াকুব আলী, অপারেটিভ ডিরেক্টর মো. ফাহিম মাহবুব, কোম্পানি সচিব পার্র্থ প্রতিম দাশসহ ইস্যু ম্যানেজার ট্রিপল এ ফিনান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড, রেজিস্ট্রারার টু ইস্যু প্রাইম ব্যাংক ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড এবং উভয় স্টক এক্সচেঞ্জের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।
এ বিষয়ে ওয়ালটনের কোম্পানি সচিব পার্র্থ প্রতিম দাশ বলেন, ইলেক্ট্রনিক সাবক্রিপশন সিস্টেম ব্যবহার করে আগামি ২ মার্চ বিকাল ৫টা থেকে ৫ মার্চ বিকাল ৫টা পর্যন্ত বিডিং হবে। বিডিংয়ের মাধ্যমে যোগ্য বিনিয়োগকারীরা কোম্পানির কাট অফ প্রাইজ নির্ধারণ করবেন। এরপর কাট অফ প্রাইজের ১০ শতাংশ হ্রাসকৃত মূল্যে লটারির মাধ্যমে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের মাঝে শেয়ার ইস্যু করা হবে।
তিনি জানান, আইপিওতে আসার জন্য গত বছরের ১৫ জানুয়ারি ওয়ালটনের রোড শো অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিনিয়োগকারীদের কাছে কোম্পানির পরিচিতি, আর্থিক অবস্থা, ভবিষ্যত পরিকল্পনা এবং আইপিও সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরা হয়। এরপর চলতি বছরের ৭ জানুয়ারি বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ৭১৪তম কমিশন সভায় ওয়ালটনের আইপিও বিডিং অনুমোদিত হয়।
জানা গেছে, পুঁজিবাজারে ওয়ালটনের অনুমোদিত মূলধন ৬০০ কোটি টাকা। পরিশোধিত মূলধন ৩০০ কোটি টাকা। পুঁজিবাজার থেকে ১০০ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে ওয়ালটন। এ অর্থ ওয়ালটনের কারখানার সম্প্রসারণ, আধুনিকায়ন, গবেষণা ও মানউন্নয়ন, ব্যাংক লোনের আংশিক দায় পরিশোধ এবং আইপিও খরচ সংকুলানে ব্যয় হবে।

টানা ৬ কার্যদিবস শেয়ারবাজারে পতন

বিনিয়োগের জন্য ব্যাংকগুলো ২০০ কোটি টাকার বিশেষ ফান্ড গঠন করতে পারবে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এমন সার্কুলার জারির পর উত্থানে ফিরতে শুরু করেছিল শেয়ারবাজার। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সার্কুলার জারির পর কয়েক কার্যদিবস উত্থান হলেও আবার টানা পতনে নিমজ্জিত শেয়ারবাজার। বৃহস্পতিবারও পতন হয়েছে শেয়ারবাজারে। বৃহস্পতিবারের দিন নিয়ে টানা ৬ কার্যদিবস পতন হয়েছে শেয়ারবাজারে। ঢাকা ও চট্টগাম স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই ও সিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
বৃহস্পতিবার প্রধান শেয়ারবাজার ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৬৯ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছ ৪ হাজার ৪৮০পয়েন্টে। অপর সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ১৫, ডিএসই-৩০ সূচক ২৫ এবং সিডিএসইটি সূচক ১৬ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে ১০৪৫, ১৪৯২ ও ৮৮৬ পয়েন্টে।
ডিএসইতে বৃহস্পতিবার টাকার পরিমাণে লেনদেন হয়েছে ৫৬১ কোটি ৪১ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট। যা আগের দিন থেকে ৬৫ কোটি ৯৩ লাখ টাকা কম। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৬২৭ কোটি ৩৪ লাখ টাকার।
ডিএসইতে বৃহস্পতিবার ৩৫৬টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৬০টির বা ১৭ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর বেড়েছে। দর কমেছে ২৫০টির বা ৭০ শতাংশের এবং ৪৬টি বা ১৩ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর অপরিবর্তিত রয়েছে।
ডিএসইতে বৃহস্পতিবার টাকার পরিমাণে সবচেয়ে বেশি অর্থাৎ ৩০ কোটি ৭৯ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে ব্র্যাক ব্যাংকের। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৬ কোটি ৬৮ লাখ টাকর ভিএফএস থ্রেড ডাইংয়ের এবং তৃতীয় সর্বোচ্চ ১২ কোটি ৯১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে সেন্ট্রাল ফার্মার।
এছাড়া ডিএসইতে টপটেন লেনদেন থাকা অপর কোম্পানিগুলোর মধ্যে রয়েছে- সিলভা ফার্মা, ইন্দো-বাংলা ফার্মা, ওরিয়ন ফার্মা, ন্যাশনাল পলিমার, গ্রামীণফোন, ফার কেমিক্যাল এবং লাফার্জহোলসিম।
অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই এদিন ১৯৮ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১৩ হাজার ৭৪৩ পয়েন্টে। এদিন সিএসইতে হাত বদল হওয়া ২৩৯টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ৫৩টির, কমেছে ১৬২টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৪টির দর। বৃহস্পতিবার সিএসইতে ১৯ কোটি ৪২ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

শেয়ারবাজারের বিশেষ তহবিল নিতে আগ্রহী ৮ ব্যাংক

শেয়ারবাজারে বিনিয়োগের জন্য টাকা নিতে আগ্রহী ৮ ব্যাংক। বিশেষ এ তহবিল নেওয়ার জন্য ইতিমধ্যে কাজ শুরু করে দিয়েছে ৮ ব্যাংক। ব্যাংকগুলো হলো- সোনালী ব্যাংক, অগ্রণী ব্যাংক, ঢাকা ব্যাংক, দি সিটি ব্যাংক, আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংক, শাহ্জালাল ইসলামী ব্যাংক, এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংক ও ইবিএল।
জানা যায়, ১০ ফেব্রুয়ারি শুধু পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের জন্য ব্যাংকগুলোর আলাদা তহবিল গঠনের বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলারের পর ব্যাংকগুলো এ নিয়ে আলোচনা শুরু করে। এখন পর্যন্ত কয়েকটি ব্যাংক তহবিল গঠনে নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে কেন্দ্রীয় ব্যাংক ও সংশ্নিষ্ট একাধিক সূত্রে জানা গেছে।
ব্যাংকগুলোর মধ্যে রাষ্ট্রীয় মালিকানার সোনালী ও অগ্রণী, বেসরকারি খাতের ঢাকা ব্যাংক, দি সিটি ব্যাংক, আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংক, শাহ্জালাল ইসলামী ব্যাংক, এনআরবি কমার্শিয়াল ও ইবিএল আনুষ্ঠানিকতা শুরু করেছে বলে জানা গেছে।এর বাইরেও আরও দুটি ব্যাংক এ বিষয়ে কাজ করছে। এগুলোর মধ্যে কোনো কোনো ব্যাংক বিও অ্যাকাউন্ট খুলেছে বলেও জানা গেছে। তবে কেউ এখনই কোনো তথ্য দিতে রাজি হয়নি।
কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্র জানিয়েছে, বিশেষ তহবিল গঠনের বিষয়ে খুঁটিনাটি জানতে বেশ কিছু ব্যাংক যোগাযোগ করলেও কেউ এখন পর্যন্ত তহবিলের জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে ঋণ নিতে আবেদন করেনি। কয়েকটি ব্যাংক এখন নিজস্ব তহবিল থেকে বিনিয়োগ করছে বলে জানিয়েছে। তহবিল গঠনের শর্ত অনুযায়ী, পৃথক ব্যাংক এবং বিও অ্যাকাউন্ট খুলেছে বলে অনানুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশ ব্যাংককে জানিয়েছে। তাছাড়া বিশেষ তহবিলের মেয়াদ পাঁচ বছর অর্থাৎ ২০২৫ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। আর সার্কুলার জারি হয়েছে মাত্র দুই সপ্তাহ আগে। তাই ব্যাংকগুলো চাইলেই তাৎক্ষণিকভাবে তহবিল গঠন করতে পারে না। কেননা এ জন্য পর্ষদের অনুমোদন নেওয়া ছাড়া আনুষ্ঠানিকতা শেষ করতে সময় দরকার।
পুঁজিবাজারের অব্যাহত দরপতন বন্ধ করতে মূলত প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বাড়ানোর উদ্দেশ্য নিয়ে তহবিল গঠনের উদ্যোগটি নেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সার্কুলার অনুযায়ী, যে কোনো বাণিজ্যিক ব্যাংক চাইলে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের উদ্দেশ্যে সর্বোচ্চ ২০০ কোটি টাকার তহবিল গঠন করতে পারবে। তহবিলের মেয়াদ হবে সর্বোচ্চ পাঁচ বছর। তহবিলের সর্বোচ্চ ৪০ শতাংশ সংশ্নিষ্ট ব্যাংককেই বিনিয়োগ করতে হবে। বাকি ৬০ শতাংশ নিজ ও অন্যান্য ব্যাংকের সহযোগী এবং স্বতন্ত্র ব্রোকারেজ হাউস ও মার্চেন্ট ব্যাংককে শুধু পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের উদ্দেশ্যে ঋণ দেয়া হবে।
সংশ্নিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, ঢাকা ব্যাংক ও দি সিটি ব্যাংক সহ কয়েকটি ব্যাংক নিজস্ব তহবিল থেকে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করছে। ঢাকা ব্যাংকের পর্ষদ এরই মধ্যে ২০ কোটি টাকা বিনিয়োগে সম্মতি দিয়েছে। আরও ১০০ কোটি টাকার তহবিল গঠনের বিষয়ে পরবর্তী পর্ষদ সভায় সিদ্ধান্ত হতে পারে।

শেয়ার বিক্রি করবে রিং শাইনের প্লেসমেন্ট হোল্ডার

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত বস্ত্র খাতের কোম্পানি রিং শাইন টেক্সটাইলের প্লেসমেন্ট হোল্ডার ইউনিভার্স নিটিং গার্মেন্টস লিমিটেড ৩৭ লাখ বোনাস শেয়ার বিক্রির ঘোষণা দিয়েছে। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
জানা গেছে, ইউনিভার্স নিটিংয়ের কাছে থাকা রিং শাইনের ২ কোটি ৮২ লাখ ৬৩ হাজার ৮৩৭টি শেয়ারের মধ্যে ৩৬ লাখ ৮৬ হাজার ৫৮৭টি বোনাস শেয়ার বিক্রির সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
আগামী ৩০ কার্যদিবসের মধ্যে ঘোষণাকৃত এই শেয়ার বিক্রি সম্পন্ন করবে ইউনিভার্স নিটিং। ইউনিভার্স নিটিং গার্মেন্টসের চেয়ারম্যান সুং ওয়ে মিন একই সাথে রিং শাইনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও উদ্যোক্তা।
ইউনিভার্স নিটিং গার্মেন্টস ব্লক মার্কেটে স্টক এক্সচেঞ্জের মাধ্যমে উল্লেখিত পরিমাণ শেয়ার বেচতে পারবে।

ব্লক মার্কেটে ৪১ কোটি টাকার লেনদেন

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) বৃহস্পতিবার ব্লক মার্কেটে মোট ১১ কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে। কোম্পানিগুলোর মোট ৬৮ কোটি ৬৩ লাখ ৮২৫টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যার আর্থিক মূল্য ৪১ কোটি ৭৫ লাখ টাকা। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
জানা গেছে, কোম্পানিগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি অর্থাৎ ৩৩ কোটি ৩৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে বিকন ফার্মাসিটিক্যালস লিমিটেডের।
বেক্সিমকো ফার্মাসিটিক্যালস ৪ কোটি ৫৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন করে তালিকার দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। তৃতীয় স্থানে থাকা স্কয়ার ফার্মা ২ কোটি ১৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।
এছাড়া ব্লকে লেনদেন করা অন্য কোম্পানিগুলো হচ্ছে-আনোয়ার গ্যালভানাইজিং, বঙ্গজ, ব্রাক ব্যাংক, কোহিনুর কেমিক্যাল, এমবিএল ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড, এমএল ডাইং, এসইএমএল এফবিএসএল গ্রোথ ফান্ড, এসকে ট্রিমস ও স্কয়ার ফার্মাসিটিক্যালস লিমিটেড।

টপটেন লুজারের শীর্ষে স্ট্যান্ডার্ড সিরামিক

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) বৃহস্পতিবার টপটেন লুজার বা দরপতনের শীর্ষে রয়েছে স্ট্যান্ডার্ড সিরামিকস লিমিটেড। বৃহস্পতিবার শেয়ারটির দর ৪০ টাকা ৮০ পয়সা বা ৮.৭৫ শতাংশ কমেছে। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
ঊৃহস্পতিবার কোম্পানিটির শেয়ার সর্বশেষ ৪২৫ টাকা ৬০ পয়সা দরে লেনদেন হয়। এদিন কোম্পানিটি এক হাজার ৮৭২ বারে ৭৪ হাজার ৬০টি শেয়ার লেনদেন করেছে। যার বাজার মূল্য ৩ কোটি ২০ লাখ টাকা।
লুজার তালিকার দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস লিমিটেড। ঊৃহস্পতিবার শেয়ারটির দর ২০ পয়সা বা ৪.৭৬ শতাংশ কমেছে। শেয়ারটি ঊৃহস্পতিবার সর্বশেষ ৪ টাকা দরে লেনদেন হয়।
লুজার তালিকায় থাকা অন্য কোম্পানিগুলো হচ্ছে- সায়হাম টেক্সটাইল, ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ, হাক্কানি পাল্প, গ্লোবাল হেভি কেমিক্যাল, লিবরা ইনফিউশন, বেক্সিমকো সিনথেটিকস, ফ্যামিলি টেক্স ও ইসলামী ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড।

সুন্দরবনটাইমস.কম/রহমান আজিজ/ঢাকা

 


আপনার মতামত লিখুন :

নিজস্ব প্রতিবেদক