কপিলমুনিতে জেলা প্রশাসকের নির্দেশে বন্ধ হলো বিতর্কিত ড্রেনেজ ব্যাবস্থা

প্রকাশিত: ২:১০ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৫, ২০২০ | আপডেট: ২:১০:অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৫, ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক, কপিলমুনি(খুলনা):
খুলনার পাইকগাছা উপজেলার কপিলমুনি বাজারের পুরাতন সিনেমা হল সংলগ্ন সরকারী রাস্তা দখল করে তৈরী করা হয় ৪ তলা বিশিষ্ট ভবন। সেই বিতর্কিত ভবনের কার্ণিশ রেখেই অব্যাবস্থাপনায় ভবন মালিকসহ আশপাশের দোকান মালিকরা নিজ উদ্যোগে ড্রেন নির্মানের কাজ শুরু করলেও অবশেষে তা বন্ধ করা হয়েছে। মঙ্গলবার বেলা ১২ টার দিকে খুলনা জেলা প্রশাসক হেলাল হোসেন কপিলমুনিতে আগমনের পর স্থানীয়দের অভিযোগের ভিত্তিতে তিনি অব্যাবস্থাপনায় ড্রেন নির্মাণ কাজ বন্ধের নির্দেশ দেন সংশ্লিষ্টদের। এর আগে বিদেশী সংস্থা জাইকার অর্থায়নে পরিকল্পিত ড্রেনেজ ও বাজারের মধ্যকার ঢালাই সড়কের কাজ সম্পন্ন করলেও পুরাতন সিনেমা হল সংলগ্ন ৪তলা বিতর্কিত ভবনের কারণে প্রায় ১০০ গজ রাস্তার কাজ অসমাপ্ত অবস্থায় পড়ে আছে। এতে করে পথচারী ও জনসাধারণ চলাচলে দুর্ভোগের সৃষ্টি হয়। বর্ষা মৌসুমে ঢালাইকৃত রাস্তা থেকে অপেক্ষাকৃত অনেক নিচু হওয়ায় পানি জমে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। অথচ একটি ভবনেই আটকে যায় রাস্তাটির বাকী কাজ।

সোহাগ মাল্টিমিডিয়া এন্ড ট্র্যাভেলস

এদিকে বিষয়টি নিয়ে অনুসন্ধানে নামলে উঠে আসতে থাকে নানান রকম তথ্য। জানাযায়, রাস্তাটির ঢালাই ও সংস্কার না করেই চলে যায় সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার। সর্বশেষ গত সোমবার ভবন মালিক পরান গাজী সরকারী জায়গায় তার বিতর্কিত ভবনের কার্নিশ রেখেই স্থানীয়দের সাথে নিয়ে ড্রেনের কাজ শুরু করেন। এ সময় পাইকগাছা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) মুহাম্মদ অরাফাতুল আলমের নির্দেশে কপিলমুনি ইউএলও মোঃ জাকির হোসেন অপরিকল্পিত ড্রেনের কাজ বন্ধ করে দেন। পরে খুলনা-৬ এমপিকে জানান ড্রেন নির্মানকারীরা। এক পর্যায় এমপির নির্দেশে আবার কাজ শুরু করেন তারা। মঙ্গলবার জেলা প্রশাসক মহোদয় এর কপিলমুনি আগমনে বিষয়টি নিয়ে অভিযোগ করেন স্থানীয়রা। এ সময় অপরিকল্পিত ড্রেন নির্মানের কারণ সমুহ ও রাস্তার জায়গা দখল করে বিতর্কিত ভবন নির্মাণ বজায় রাখার বিষয়টি তুলে ধরেন তারা। পরে জেলা প্রশাসক মহোদয়ের নির্দেশে উক্ত কাজ বন্ধ করা হয়।

এ বিষয়ে কপিলমুনি ইউএলও মোঃ জাকির হোসেন বলেন, ‘আমি নির্দেশনা পেয়ে সেখানে যায় এবং তাদের কাজ বন্ধ করতে বলি। পরে এমপি সাহেবের সাথে কথা বলে ড্রেনের কাজ শুরু করেন তারা।’

সুন্দরবনটাইমস.কম/এইচ এম এ হাশেম

 


আপনার মতামত লিখুন :

নিজস্ব প্রতিবেদক